২০৩০ – এ অর্থনৈতিক দিক থেকে কতটা উন্নতি করবে কাশ্মীর

1
78

কাশ্মীর অপরূপ সুন্দর একটি জায়গা, এর সৌন্দর্য ভাষায় প্রকাশ করা কঠিন, কিন্তু স্বাধীনতার পর থেকে কিছু আইনগত সমস্যা থাকার কারণে কাশ্মীরের অর্থনৈতিক উন্নতি এবং বিকাশ তেমন ভাবে হয়নি। সম্প্রতি মোদি সরকার কাশ্মীর থেকে ৩৭০ এবং 35/A ধারা সরিয়ে দেওয়ার ফলে, এই সমস্ত আইনি জটিলতা কেটে গেছে। এখন ভারত সরকার সরাসরি কাশ্মীরের অর্থনৈতিক উন্নতি এবং বিকাশ ঘটাতে সক্ষম হবে। কাশ্মীরিরা যদি বুঝতে সক্ষম হয় যে যা হয়েছে তা সত্যি তাদের ভালোর জন্য হয়েছে এবং তারা যদি বঝে যে তারা আর কাশ্মীরি নয় বরং তারা এখন থেকে ভারতীয় এবং ভারতীয় সংবিধানের অংশ তাহলে ২০৩০ এর মধ্যে কাশ্মীরের বিপুল অর্থনৈতিক উন্নতি এবং বিকাশের সম্ভাবনা রয়েছে। সারা ভারতবর্ষের মোট জনসংখ্যার মাত্র ১ শতাংশ মানুষ বসবাস করে কাশ্মীরে, তবুও কেন্দ্র থেকে সারা দেশের বিকাশের জন্য যে ফান্ড নির্ধারণ করা হয় তার ১০ শতাংশ কাশ্মীরকেই দেয়া হয়। আপনি জানলে অবাক হবেন, সারা দেশের মধ্যে শুধুমাত্র কাশ্মীরেই সবচেয়ে কম মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে বসবাস করে। কাশ্মীরে আর্থিক উন্নতির সম্ভাবনা খুবই উজ্জ্বল, কারণ আইনি জটিলতা কেটে যাওয়ার ফলে বিদেশি বিনিয়োগকারীরা এখানে বিনিয়োগ করতে সক্ষম হবে। তো চলুন জেনে নেয়া যাক, কোন কোন সেক্টরে কাশ্মীর খুব তাড়াতাড়ি উন্নতি লাভ করতে পারে এবং কেমন হতে পারে ২০৩০ এর কাশ্মীর।

Kashmir
rohoshyosondhane

নাম্বার ১ ঃ- আপনি জেনে অবাক হবেন যে ভারতের NHPC লিমিটেড অর্থাৎ নেশনাল হাইড্রইলেক্ট্রিক পাওয়ার করপরেশন যত পরিমাণ বিদ্যুৎ উৎপাদন করে তার একটি বড় অংশ জম্বু কাশ্মীরে অবস্থিত হাইড্রইলেক্ট্রিক পাওয়ার প্লান্ট প্রজেক্ট থেকে আসে। জম্মু এবং কাশ্মীরে সব মিলিয়ে প্রায় ১৬০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হয়। ধারা ৩৭০ এবং 35/A সরে যাওয়ার পর সরকারি উদ্যোগ এবং অন্যান্য উদ্যোগের মাধ্যমে এই প্রজেক্টে উন্নতির সম্ভাবনা প্রবল, যেখানে হাইড্রইলেক্ট্রিক পাওয়ার প্লান্ট গঠন করে বিদ্যুৎ উৎপাদন এবং বিক্রি করা সম্ভব।

Kashmir
rohoshyosondhane

নাম্বার ২ ঃ- জম্মু-কাশ্মীরে কৃষি এবং উন্নত কৃষির অনেক সম্ভাবনা রয়েছে। এখানে অনেক দামি ফল ও শুকনো ফল পাওয়া যায় আর এই খাতে যদি সরকারি বা বেসরকারি সহযোগিতা পাওয়া যায়, তবে এর উন্নতির সম্ভাবনা প্রবল ভাবে বেড়ে যাবে। সারা বিশ্বে প্রসিদ্ধি রয়েছে এখানকার জাফরান অর্থাৎ কেশর, যা বিদেশের বাজারে এক্সপোর্ট করা হয়। এই ছাড়া এখানে আপেল, চেরি, বাদাম, আখরোট ইত্যাদিও চাষ করা হয়। ৩৭০ এবং 35/A ধারা সরে যাবার পরে সরকারি এবং বেসরকারি নিবেশ জম্মু-কাশ্মীরের এই কৃষি উদ্যোগকে ভবিষ্যতে নতুন পথ দেখাতে সক্ষম হবে।

Kashmir
rohoshyosondhane

নাম্বার ৩ ঃ- সিরিকালচার অর্থাৎ রেশমের প্রোডাকশন। এখানে রেশম উৎপাদন করা হয় আর আমরা সকলেই জানি রেশম উৎপাদন এবং ম্যানুফ্যাকচারিং খুবই লাভজনক একটি ব্যবসা, কিন্তু কম অর্থনৈতিক নিবেশ এবং প্রযুক্তির অভাবে এই উদ্যোগ পূর্ণরূপে বিকাশ হতে পারছে না, সরকারি বা বেসরকারি ইনভেস্টমেন্ট এলে কাশ্মীরের এই রেশম উদ্যোগে অনেক বুস্ট পাওয়া যাবে।

আরও পড়তে ক্লিক করুন ঃ- কারগিল যুদ্ধের অজানা কাহিনী ।। ভারতীয় সেনাদের এক বীরগাথা

Kashmir
rohoshyosondhane

নাম্বার ৪ ঃ- হর্টি কালচার ইন্ডাস্ট্রি, যে গাছপালা কাশ্মীর ঘাঁটিতে পাওয়া যায় তা খুবই সুন্দর এবং বিরল, আর সেই জন্য এই সমস্ত গাছপালা খুব চড়া দামে বিক্রি হয়। কিন্তু এখানেও প্রযুক্তি এবং অর্থনৈতিক কারণে এই ইন্ডাস্ট্রি সম্পূর্ণ মাত্রায় বিকশিত হতে পারিনি। ৩৭০ এবং 35/A ধারা উঠে যাওয়ার পরে হর্টি কালচার ইন্ডাস্ট্রির স্পেশালিস্টরা চাইবে কাশ্মীরে বিনিয়োগ করার জন্য এবং প্রচুর মাত্রায় মুনাফা অর্জন করার জন্য।

Kashmir
rohoshyosondhane

নাম্বার ৫ ঃ- কাশ্মীরের ডোরা সেক্টরে হাই গ্রেডের রত্ন, নীলা পাওয়া যায়। কিন্তু সেখানে গুজরাটের সুরাটের মত কোন বড় কারখানা নেই। এই ইন্ডাস্ট্রিও অনেক উন্নতি করতে পারবে এই ৩৭০ এবং 35/A ধারা সরে যাওয়ার পর, কারণ এখানে পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে পর্যটকেরা আসে আর তাই ভালো দামও পাওয়া যাবে এর জন্য।

Kashmir
rohoshyosondhane

নাম্বার ৬ ঃ- সাম্প্রতিক কিছু বছর যখন কাশ্মীর শান্ত ছিল তখন কিছু কনজিউমার গুডস ম্যানুফ্যাকচার কোম্পানি কাশ্মীরে তাদের কোম্পানি গড়ে তোলার জন্য উদ্যোগ নিয়েছিল। কিন্তু এখানে ভূমি অধিগ্রহণ আইন খুবই জটিল হওয়ার কারণে, সকল কম্পানি গুলি তাদের  কারখানা নির্মাণ করতে পারিনি। কিন্তু এখন দ্য এসোসিয়েটেড চেম্বার অফ কমার্স এন ইন্ডাস্ট্রি অফ ইন্ডিয়া চেষ্টা করবে, কাশ্মীরে ইন্ডাস্ট্রিয়াল সেক্টর গুলি ডেভলপ করার জন্য কারণ ৩৭০ এবং 35/A ধারা সরে যাওয়ার পরে ভূমি অধিগ্রহণ আইন আরও সহজ হয়ে যাবে।

Kashmir
rohoshyosondhane

নাম্বার ৭ ঃ- আপনাকে জানিয়ে দি সম্প্রতি কঙ্কন রেলওয়ে কর্পোরেশন এবং IRCON অর্থাৎ ইয়ারকনের যৌথ উদ্যোগে জম্বু কাশ্মীরের রেলওয়ে প্রজেক্টকে আরো বড় বানানোর কর্মসূচি গ্রহন করা হয়েছে। এর বাজেট 2.5 বিলিয়ন ইউ এস ডলার। এতে যেমন পণ্য পরিবহনে সুবিধা হবে তেমনই পর্যটন ক্ষেত্রেও উন্নতি ঘটবে।

Kashmir
rohoshyosondhane

নম্বর ৮ ঃ- পর্যটন ট্যুরিজম, একথা তো আমরা সকলেই জানি যে কাশ্মীর শুধু ভারত নয় পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর জায়গা গুলোর মধ্যে একটি। কিন্তু অশান্ত পরিবেশ এবং টেররিস্ট এটাকের কারণে এই পর্যটন ইন্ডাস্ট্রি সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। কিন্তু এখন আর তা হবে না, সাম্প্রতিক কিছু বছর আগে থেকে পর্যটকেরা আবার কাশ্মীর মুখী হয়েছে, কিন্তু এবার ৩৭০ এবং 35/A ধারা সরে যাবার পর এবং কাশ্মীর কেন্দ্রশাসিত প্রদেশের অন্তর্ভুক্ত হওয়ার ফলে, এবার এখানে ট্যুরিজম সবচেয়ে দ্রুত গতিতে অগ্রসর হবে। যদি ওয়ার্ল্ড ক্লাস ফেসিলিটি পর্যটকদের দেওয়া হয় তাহলে সারা বিশ্ব থেকে আসা পর্যটকদের জন্য কাশ্মীর সুইজারল্যান্ডের থেকেও সুন্দর এবং উপভোগ্য জায়গা হয়ে উঠবে।

তবে বন্ধুরা আমরা আসলেই জানি না যে এই ধারা গুলি তুলে নেয়ার পর কাশ্মিরিদের মনে কী প্রভাব পড়েছে, কারন আমরা কাশ্মীরি নয়, কিন্তু আমি আমার সমস্ত কাশ্মিরি ভাইদের অভিনন্দন জানাতে চাই, এখন থেকে আপনি অফিশিয়ালি ভারতীয় আর আপনাদের সকলের সুরক্ষা এবং বিকাশের দায়িত্ব আমাদেরই তো আসুন এবং যুক্ত হন ভারতের মেইনস্ট্রিমে, ভারতবাসীরা দুই হাত বাড়িয়ে আপনাদের স্বাগতম জানাবে।

ধন্যবাদ …………

সুমন্ত ………

rohoshyosondhane
rohoshyosondhane
হাই।। বন্ধুরা... আমি সুমন্ত, পৃথিবী কাঁপানো অসংখ্য রহস্যের উদঘাটন হয়নি আজও। তবে এগুলো নিয়ে আলোচনা-গবেষণা চলছে এখনো। রহস্যময় পৃথিবীতে প্রাকৃতিক বা অ-প্রাকৃতিক রহস্যের সীমা নেই। এরমধ্যে আবার কিছু স্থান বা বিষয় রয়েছে যা অতি-প্রাকৃতিক। এ কারণে এগুলো যুগ যুগ ধরে মানুষের কাছে হাজারো রহস্যে ঘেরা। আধুনিক বিজ্ঞানের উৎকর্ষতাও এ রহস্য উদঘাটন করতে পারেনি। এমনই হাজারো রহস্যের সন্ধান দিতে আমারদের এই ওয়েবসাইটি করা। আশা করি আপনারা সাথেই থাকবেন এবং উৎসাহ দিবেন। Subscribe করে আমাদের সাথে থাকতে ভুলবেন না।

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here