লাইফ জ্যাকেট ও কোন খাবার ছাড়াই ৫ দিন সমুদ্রে ভেসে ছিল এই মানুষটি

1
63

কথাই বলে রাখে হরি মারে কে, আর এমনই একটি নজিরবিহীন ঘটনার সাক্ষী হয়ে থাকলেন পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দা রবীন্দ্রনাথ দাস। পেশায় মৎস্যজীবী এই মানুষটি জীবিকার টানে গিয়েছিলেন গভীর সমুদ্রে মাছ ধরার জন্য আর সেখানেই ঘটে যায় এক বিপত্তি। আজকের এই ভিডিওতে আমরা আমরা জানব কিভাবে পাঁচদিন উত্তাল সমুদ্রের বুকে ভেসে থাকার পর বেঁচে ফিরলেন পশ্চিমবঙ্গের নামখানার মৎস্যজীবী।

দিনটা ছিল ৬ জুলাই অশান্ত সমুদ্র যাওয়ার সরকারি নিষেধাজ্ঞা প্রায় অমান্য করে ইলিশ ধরতে গভীর সমুদ্রে পাড়ি দেয় নামখানার পেজার  গঞ্জের প্রায় ৩০০ টিরও বেশি ট্রলার। বাংলাদেশের কেঁদো দ্বীপের কাছে উত্তাল সমুদ্রে ডুবে যায় প্রায় চারটি ট্রলার। উদ্ধার করা হয় ৩৬ জন মৎসজীবিকে, নিখোঁজ ছিলেন ২৫ জন মৎসজীবি। সকলেই আশঙ্কা করেছিল যে এই নিখোঁজ হয়ে যাওয়া মৎস্যজীবীদের মধ্যে কেউই আর বেঁচে নেই। কিন্তু ঠিক ৫ দিন পর বাংলাদেশী এক জাহাজ অদ্ভুতভাবে উদ্ধার করে পশ্চিমবঙ্গের নামখানার মৎস্যজীবী রবীন্দ্রনাথ দাসকে।

Rabindranath Das
rohoshyosondhane

একেই বলে মিরাক্কেল এযেন রূপকথার গল্পকেও হার মানায়, লাইফ জ্যাকেট ছিল না জল বা খাবারের প্রশ্নই নেই শুধুমাত্র মনের জোরে, প্রায় পাঁচদিন উত্তাল সমুদ্রে ভেসে থাকলেন এই হার না মানা এই মৎস্যজীবী নিশ্চিত। এক সময় ভেবেছিলেন মৃত্যু তার নিশ্চিত কিন্তু মৃত্যু ছিনিয়ে নিতে পারেনি তার প্রাণ। চোখের সামনে একের পর এক প্রায় ১৪ জন সঙ্গীকে সমুদ্রে তলিয়ে যেতে দেখেছেন তিনি। সমুদ্রস্রোত চার দিন ধরে তাকে টেনে নিয়ে যায় চট্টগ্রামের উপকূলে, আর সেখানেই বাংলাদেশী এক জাহাজের নাবিকদের চোখে পড়ে যান তিনি এরপর শুরু হয় উদ্ধার প্রক্রিয়া। এই উদ্ধারকারী জাহাজটির নাম ছিল এম ভি জাওয়াদ, আর তার ক্যাপ্টেন ছিলেন এস এম নাসির উদ্দিন। প্রতিদিনের মত সেদিনও তিনি রুটিন চেকআপ করছিলেন আর তখনই হঠাৎ তিনি লক্ষ্য করেন সমুদ্রের মাঝে একটি মানুষের মাথা একবার জলের ওপরে উঠছে একবার নামছে। অভিজ্ঞ এই ক্যাপ্টেন তখনই বুঝে যান কোন মানুষ হয়ত বিপদে পড়েছে, তাকে সাহায্য করা প্রয়োজন। তখন তিনি জাহাজ ঘুরিয়ে মানুষটিকে উদ্ধার করার প্রস্তুতি নিতে শুরু করেন। যদিও পণ্যবাহী এই জাহাজটি ছিল ফুললি লোডেড তাই জাহাজটিকে ঘোরানো খুব একটা সহজ কাজ ছিল না, কিন্তু দক্ষ এই ক্যাপ্টেন খুব সহজেই জাহাজটি ঘুরিয়ে ফেলেন। প্রচন্ড উত্তাল স্রোতের কারণে মাঝে মাঝে হারিয়ে যাচ্ছিল জলে ভেসে থাকা সেই মানুষটি। কিন্তু অবশেষে সে আবার ক্যাপ্টেনের নজরে আসে এবং তার দিকে ছুঁড়ে দেয়া হয় লিঙ্গ এবং রিয়া রিং বোয়া এবং লাইফ জ্যাকেট রবীন্দ্রনাথ লাইফ জ্যাকেট ধরতে না পারলেও ধরে ফেলেছিলেন ধরে ফেলেছিল বোয়াটি এরপর তাকে টেনে আনা হয় জাহাজের কাছে এবং উদ্ধারকারী জলের সাহায্যে তাকে তুলে আনা হয় জাহাজ।

Rabindranath Das
rohoshyosondhane

সাহসী ক্যাপ্টেনের উদার মানসিকতা এবং দক্ষতার কারণে বেঁচে যায় একটি মানুষের প্রাণ।এরপর জাহাজেই প্রাইমারি ট্রিটমেন্ট করার পরে তাকে ভর্তি করা হয় বাংলাদেশের এক হসপিটালে। সেখানে থেকে সুস্থ হওয়ার পরে তিনি যা বলেছিলেন তা ছিল আরো ভয়ঙ্কর। তিনি বর্ণনা দেন কিভাবে ৫ দিন তিনি সমুদ্রে কাটিয়েছিলেন। তার ভাষ্যমতে খাদ্য বলতে শুধুমাত্র ছিল বৃষ্টির জল, সমুদ্রের জল লবণাক্ত হয়ার কারনে তা সত্যি পান করার অযোগ্য। সমুদ্রিক ঝড়ো বাতাস এবং প্রচন্ড সূর্যের তাপে ঝলসে গিয়েছিল তার দেহের চামড়া আর রাতের সমুদ্র যে কতটা ভয়ংকর তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। এমন কি সামুদ্রিক মাছেরা তাকে কামড়াতে শুরু করেছিল এবং খেতে শুরু করেছিল তার দেহের মাংস। শুধুমাত্র রবীন্দ্রনাথের হার না মানা মানসিকতা এবং মনের জোরই তাকে বাঁচিয়ে রেখেছিল এই পাঁচ দিন । পরবর্তীতে বাংলাদেশি হাই কমিশন এবং ভারতীয় হাই কমিশনের যৌথ উদ্যোগে বাড়ি ফিরে আসেন রবীন্দ্রনাথ। তো বন্ধুরা কেমন লাগলো মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে আসা এই মানুষটির ব্যাপারে জেনে? আশা করি ভিডিওটি আপনাদের ভাল লেগেছে, যদি ভিডিওটি ভাল লাগে ভিডিওটিকে লাইক ও শেয়ার করুন এবং অন্য মানুষের জানার সুযোগ করে দিন। আর এইরকমই অদ্ভুত রহস্যময় অজানা ভিডিও দেখার জন্য আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করে পাশের বেল আইকনে ক্লিক করে রাখুন। দেখা হবে পরের ভিডিওতে, ভালো থাকবেন ধন্যবাদ।

সুমন্ত ………।

rohoshyosondhane
rohoshyosondhane
হাই।। বন্ধুরা... আমি সুমন্ত, পৃথিবী কাঁপানো অসংখ্য রহস্যের উদঘাটন হয়নি আজও। তবে এগুলো নিয়ে আলোচনা-গবেষণা চলছে এখনো। রহস্যময় পৃথিবীতে প্রাকৃতিক বা অ-প্রাকৃতিক রহস্যের সীমা নেই। এরমধ্যে আবার কিছু স্থান বা বিষয় রয়েছে যা অতি-প্রাকৃতিক। এ কারণে এগুলো যুগ যুগ ধরে মানুষের কাছে হাজারো রহস্যে ঘেরা। আধুনিক বিজ্ঞানের উৎকর্ষতাও এ রহস্য উদঘাটন করতে পারেনি। এমনই হাজারো রহস্যের সন্ধান দিতে আমারদের এই ওয়েবসাইটি করা। আশা করি আপনারা সাথেই থাকবেন এবং উৎসাহ দিবেন। Subscribe করে আমাদের সাথে থাকতে ভুলবেন না।

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here